অতিরিক্ত ঘাম হতে পারে যেসব মারাত্মক রোগের লক্ষণ

অতিরিক্ত ঘাম হতে পারে যেসব মারাত্মক রোগের লক্ষণ

অতিরিক্ত ঘাম কমানোর ঔষধ,অতিরিক্ত ঘাম কোন রোগের লক্ষণ,অতিরিক্ত ঘাম কমানোর উপায়,অতিরিক্ত ঘাম দূর করার ঘরোয়া উপায়,অতিরিক্ত ঘামের হোমিও চিকিৎসা,অতিরিক্ত ঘামের কারণ কি,অতিরিক্ত ঘামানোর কারণ,অতিরিক্ত ঘাম কেন হয়,অতিরিক্ত ঘাম হওয়ার কারণ ও প্রতিকার,অতিরিক্ত ঘাম থেকে বাচার উপায়,অতিরিক্ত ঘাম দূর করার উপায়,অতিরিক্ত ঘাম হওয়ার কারণ,অতিরিক্ত ঘাম হওয়ার কারণ কি,অতিরিক্ত ঘাম হলে করণীয়,অতিরিক্ত গা ঘামার কারণ কি,অতিরিক্ত গা ঘামার কারণ,অতিরিক্ত ঘাম থেকে মুক্তির উপায়,অতিরিক্ত ঘাম থেকে বাঁচার উপায়,অতিরিক্ত ঘাম কিসের লক্ষণ,হঠাৎ অতিরিক্ত ঘাম,অতিরিক্ত ঘামের কারণ ও প্রতিকার,অতিরিক্ত ঘামের ঔষধ,অতিরিক্ত ঘামের হোমিও ঔষধ,অতিরিক্ত ঘাম কমানোর হোমিওপ্যাথি ঔষধ,অতিরিক্ত ঘামের কারণ,অতিরিক্ত ঘামের কারণ কী,অতিরিক্ত ঘামের গন্ধ দূর করার উপায়,গর্ভাবস্থায় অতিরিক্ত ঘাম,গরমে অতিরিক্ত ঘাম,অতিরিক্ত ঘামের চিকিৎসা,অতিরিক্ত ঘামের জন্য,অতিরিক্ত ঘাম ঝরার কারণ,অতিরিক্ত ঘাম থেকে,অতিরিক্ত ঘাম থেকে মুক্তি পেতে যা করবেন,অতিরিক্ত ঘাম দূর,শরীরের অতিরিক্ত ঘাম দূর করার উপায়,মুখের অতিরিক্ত ঘাম দূর করার উপায়,অতিরিক্ত ঘামের প্রতিকার,অতিরিক্ত ঘাম বন্ধ করার উপায়,শরীর থেকে অতিরিক্ত ঘাম বের হওয়ার কারন,বাচ্চাদের অতিরিক্ত ঘাম,অতিরিক্ত মুখ ঘামার কারণ কি,অতিরিক্ত মুখ ঘামার কারণ,শরীরে অতিরিক্ত ঘাম হওয়ার কারণ কি,শিশুদের অতিরিক্ত ঘাম,শরীরে অতিরিক্ত ঘাম,শরীরে অতিরিক্ত ঘাম হয় কেন,অতিরিক্ত ঘাম সমস্যা,অতিরিক্ত ঘামের সমাধান,অতিরিক্ত ঘাম হওয়া,অতিরিক্ত ঘাম হয় কেন,অতিরিক্ত ঘাম হলে,অতিরিক্ত ঘাম হয়,অতিরিক্ত ঘাম হলে কি হয়
গরম আবহাওয়ায় শরীর থেকে ঘাম ঝরা স্বাভাবিক বিষয়। আর এ কারণে এ বিষয়টি নিয়ে তেমন কেউ মাথায় মাথা ঘামায় না। ঘামের সঙ্গে শরীরের দূষিত পদার্থ বের হয়ে যায়। আর ঘাম হলে শরীরের অতিরিক্ত পানি ও লবণ বেরিয়ে যায়। ফলে শরীরের তাপমাত্রা নেমে যায়।

তবে অনেকেরই অতিরিক্ত ঘামের সমস্যা থাকে। বিষয়টি শারীরিক বিভিন্ন রোগের লক্ষণ হতে পারে। আবার অনেকের মুখ ও শরীরের তুলনায় হাতের তালু এবং পায়ের পাতায় ঘাম বেশি হয়। একে হাইপার হাইড্রোসিস বলে।

স্বাভাবিক মাত্রায় ঘাম সবারই হয়ে থাকে। ঘাম শরীরের অত্যাবশ্যকীয় একটি প্রক্রিয়া। বরং ঘাম না হওয়াও কখনো বড় ধরনের অসুস্থতার লক্ষণ।

তাই অতিরিক্ত ঘামও যেমন শারীরিক কিছু রোগের লক্ষণ আবার না ঘামলেও শরীরে থাকতে পারে নানা অসুখ। আর গরম ছাড়াই যদি আপনি ঘামেন তাহলেও তা কিন্তু বড়সড় রোগের লক্ষণ।

• অতিরিক্ত ঘাম হওয়ার কারণ

›› কেউ অতিরিক্ত ব্যায়াম করলে, নার্ভাস হলে কিংবা রোদে গেলে অতিরিক্ত ঘাম হতে পারে

›› পরীক্ষার সময় অতিরিক্ত মানসিক চাপ থেকেও বেশি ঘাম হতে পারে।

›› মশলাযুক্ত বা ঝাল বা তৈলাক্ত খাবার অতিরিক্ত খেলেও বেশি ঘাম হতে পারে।

›› আয়োডিনযুক্ত খাবার যেমন- ব্রোকোলি, পেঁয়াজ, খাবারে অতিরিক্ত লবণ খেলেও ঘাম বেশি হতে পারে।

›› শারীরিক দুর্বলতা থেকেও ঘাম বেশি হয়।

›› পাউডার ব্যবহার থেকেও ঘাম দূর করার পরিবর্তে তা আরও বাড়িয়ে দেয়।

›› অতিরিক্ত ধূমপানও ঘামের কারণ হতে পাতে।

• অতিরিক্ত ঘামলে করণীয়

›› ঘামের সঙ্গে যেহেতু সোডিয়াম, পটাশিয়াম, বাইকার্বোনেট বেরিয়ে শরীর দুর্বল ও অস্থির হয়ে যায় তাই পানির সঙ্গে লবণ ও লেবু মিশিয়ে শরবত খেলে ভালো হয়।

›› গরমে দইয়ের ঘোল ও ডাব খেতে পারেন।

›› কোল্ড ড্রিংকসের পরিবর্তে টাটকা ফলের রস খান।

›› ভিটামিন বি-১২-এর অভাবে যেহেতু হাইপার হাইড্রোসিস হয়; তাই বি-কমপ্লেক্স যুক্ত খাবার খান।

›› একবার রক্ত পরীক্ষা করে দেখে নিন, থাইরয়েড হয়েছে কি-না।

সূত্রঃ জাগোনিউজ


By SHAJAL In 2021-12-11 02:41 am এই লেখাটি 275 বার পড়া হয়েছে

SHAJALBD is a Real File Downloader Sub Site and does not upload or host any files on it's server. If you are a valid owner of any content listed here & want to remove it then pleases send us an DMCA formatted takedown notice at [email protected] We will remove your content as soon as possible. We will remove your content as soon as possible.